এই পাতাটি প্রিন্ট করুন এই পাতাটি প্রিন্ট করুন

‘ভাল ফসলের জন্য মাটির পিএইচ জানা জরুরী’ – বিশেষ সাক্ষাতকারে অধ্যাপক ড. মো.আবুল হাশেম

Share

বাকৃবি মৃত্তিকা বিজ্ঞান

 

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি থেকে ঃ
ফসলের মাটিতে কৃষকেরা প্রায়ই মাটির পি এইচ মান নিয়ে সমস্যায় পরে। এ বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উওর দিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো.আবুল হাশেম।

প্রশ ১: অনেক কৃষক জানেন না মাটির পি এইচ মান কি?
ড. মো.আবুল হাশেম ঃ পি এইচ হলো মাটির অম্লত্ব বা ক্ষারত্বের পরিমান। মাটির পি এইচ মান ৭ হলো স্বাভাবিক। পি এইচ মান ৭ এর বেশী হলে ক্ষার মাটি অর্থাৎ মাটিতে লবনের পরিমান বেশী। আর পি এইচ মান ৭ এর কম হলে সে মাটি অল্প অর্থাৎ মাটিতে এসিডের পরিমান বেশী।

প্রশ্ন ২.মাটির পি এইচ মান কিভাবে রক্ষা করা যায় এবং তা ধরে রাখার জন্য কি করা দরকার?
ড. মো.আবুল হাশেম ঃ মাটির পি এইচ মান প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হচ্ছে। কোন এক ফসল একবার রোপন করলে এবং পরে আবার একই বা অন্য ফসল উৎপাদন করলে মাটির পি এইচ মান পরিবর্তন হয়। মাটিতে পি এইচ মান কমে গেলে তা বাড়ানোর জন্য চুন জাতীয় পদার্থ (ক্যালসিয়াম কার্বোনেট, ক্যালসিয়াম হাইড্রক্সাইড, ঝিনুকের গুড়া, কাঠের ছাই প্রভৃতি) ব্যবহার করা হয়।
মাটিতে পি এইচ মান বেড়ে গেলে তা কমানোর জন্য সালফার জাতীয় সার (অ্যামোনিয়াম হাইড্রক্সাইড) ব্যবহার করা হয়। আর মাটির পি এইচ মান ধরে রাখার জন্য মাটিতে নিয়মিত অরগানিক মেটার (গোবর, কমপোস্ট) প্রয়োগ করতে হবে। এছাড়াও ফসলের মাটি পানি দ্বারা জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করলে নির্দিষ্ট পি এইচ মান ধরে রাখা যায়।

প্রশ্ন ৩.পাশাপাশি দু’টি জমির মাটির পি এইচ মান এক না হলে ফসল উৎপাদনে প্রভাব পরে কি?
ড. মো.আবুল হাশেম ঃ পাশাপাশি দু’টি জমির মাটির পি এইচ এক না হলে ফসল উৎপাদনে প্রভাব পরে। এক পাশের জমির পি এইচ মান কমে গেলে বা বেড়ে গেলে ফসল উৎপাদনে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। তাই ফসলের মাটিতে সবসময় সঠিক পি এইচ মান থাকে সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

প্রশ্ন৪. একই ফসল একই জমিতে বারবার চাষাবাদ করলে মাটির কি ক্ষতি করে?
ড. মো.আবুল হাশেম ঃ একই ফসল একই জমিতে বারবার চাষাবাদ করলে মাটির উর্বরা শক্তি নষ্ট হয়। গাছের বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান নাইট্রোজেন, ফসফরাস, সালফার প্রয়োজন। পরপর দু’বার একই ফসল উৎপাদন করলে মাটিতে নাইট্রোজেন, ফসফরাস, সালফার ঘাতটি দেখা যায়। তাছাড়া মাটির পি এইচ ঘাতটি দেখা যায় । পি এইচ বেড়ে গেলে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট গ্রহণযোগ্যতা কমে যায় (যেমনঃ জিঙ্ক)। পি এইচ কমে গেলে ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্ট গ্রহণযোগ্যতা বেড়ে যায় (যেমনঃ ফসফরাস)। তাই একই ফসল পরপর দু’বার উৎপাদন করা উচিত না।

প্রশ্ন ৫.হাইব্রিড ফসল উৎপাদনে মাটির পি এইচ মান কিভাবে রক্ষা করা যায়?

ড. মো.আবুল হাশেম ঃ হাইব্রিড ফসল উ্ৎপাদন করলে মাটির উর্বরতা নষ্ট হয়। তাই
মাটির পি এইচ মান পরিবর্তন হয়। তাই নিয়মিত মাটির পি এইচ মান পরীক্ষা করতে হবে এবং সে অনুযায়ী ফসলের মাটির যথাথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

প্রশ্ন ৬.মাটিকে সুস্থ রাখতে কৃষকদের প্রতি কিছু উপদেশ দিন?
ড. মো.আবুল হাশেম ঃ কৃষকরা প্রায়ই ইউরিয়া, টি.এস.পি ও পটাশ ব্যবহার করে। এগুলো মাটির জন্য খুবই ক্ষতিকর । তাই এগুলোর ব্যবহার কমিয়ে জৈব সার ব্যবহার করতে হবে। এতে মাটির উর্বরতা ঠিক থাকবে এবং ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।

কৃষির আরো খবরাখবর জানতে আমাদের পেইজে লাইকদিনঃ facebook.com/krishisongbad.com

আরও পড়ুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৭-২০১৮. কৃষিসংবাদ.কম
(গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত)