এই পাতাটি প্রিন্ট করুন এই পাতাটি প্রিন্ট করুন

দিনাজপুরে ইঁদুর নিধন অভিযান-২০১৮ এর উদ্বোধন  

Share

হাবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ 

ইঁদুর নিধন অভিযান :সারাদেশের ন্যায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে আজ দিনাজপুরে মাসব্যাপি ইঁদুর নিধন অভিযান অনুষ্ঠিত হয়েছে ।উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে  ইঁদুর নিধন অভিযান-২০১৮ এর উদ্বোধন করেন হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম। দিনাজপুর অঞ্চলের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক জনাব আব্দুল ওয়াজেদ এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে দিনাজপুর , ঠাকুরগাও ও পঞ্চগড় জেলার সহ বিভিন্ন উপজেলার কৃষি সম্পর্কিত কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহন করেন।

 অনুষ্ঠনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাবিপ্রবির উপাচার্য প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সহ এই সেক্টরটি আমার কাছে নিজের ঘরের মতো। তিনি বলেন ইঁদুর ছোট প্রাণী হলেও এর ক্ষতির পরিমাণ ব্যাপক। ইঁদুর উৎপাদিত ফসলের ২০-৩০ ভাগ ক্ষতি করে থাকে। ইঁদুরের শত্রু, পেঁচা, গুঁইসাপ, বনবিড়াল, বেজি এদের আবাসস্থল নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এর উপদ্রব দিন দিন বাড়ছে। তিনি আরও বলেন, ভবিষ্যতে আমাদের দেশে সাপের খামারের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে হয়তো ইঁদুর দ্বারা ক্ষতির পরিমান অনেকটা কমে আসবে। ইঁদুর নিধনে সবাই সচেতন হলে ব্যাপক ক্ষতির হাত থেকে আমরা রক্ষা পাবো।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দিনাজপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক জনাব আব্দুল ওয়াজেদ তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, অসুস্থতা স্বত্ত্বেও মাননীয় ভিসি স্যার এখানে উপস্থিত থাকায় আমরা তার প্রতি কৃতজ্ঞ ।তিনি  ইঁদুর নিধনের জন্য মাঠ পর্যায়ের কর্মকার্তাদের জন্য দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য প্রদান করেন । তিনি বলেন, এক জোড়া ইঁদুরের মাধ্যমে বছরে আড়াই থেকে তিন হাজার পর্যন্ত বাচ্চা প্রসব হয়। ইঁদুরের দাঁত প্রতিনিয়ত বড় হতে থাকে। এজন্য, ইঁদুর তাঁর সামনে যা পায় তাই কাটাকুটি করে নিজের দাঁতের আকার এবং গঠন ঠিক রাখে। । ইঁদুর বছরে দেশের ৬০-৭০ লক্ষ মানুষের খাবার নষ্ট করে বলেও জানা যায় ।

 অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে সর্বোচ্চ সংখ্যক ইঁদুর মারার জন্য ৩ জনের(কৃষক ও কর্মকর্তা) হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। এ সময় ১৮ হাজার ইঁদুর মারার জন্য শ্রেষ্ঠ কৃষক লিটন বিশ্বাসের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। ইঁদুর মারার পর এর লেজ কৃষি অফিসে জমা দিতে হয়, লেজের সংখ্যা হিসেব করে পুরস্কার প্রদান করা হয়।

আরও পড়ুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৭-২০১৮. কৃষিসংবাদ.কম
(গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত)