এই পাতাটি প্রিন্ট করুন এই পাতাটি প্রিন্ট করুন

প্রতিষ্ঠার ১৯ বছর পরে নবরূপ লাভ করেছে হাবিপ্রবির ব্যায়ামাগার

Share

হাবিপ্রবির ব্যায়ামাগারহাবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ

হাবিপ্রবির ব্যায়া্মাগার ঃ দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ  দীর্ঘ ১৯ বছর পরে নবরূপে হাবিপ্রবির ব্যায়ামাগার।

ছাত্রদের দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে আজ সোমবার ব্যায়ামাগারে নতুন কিছু যন্ত্রপাতি সংযোজন করা হয়েছে । ক্রয়কৃত এই নতুন যন্ত্রপাতি দেখতে বিকাল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম  সরেজমিনে ভিজিটে যান। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র হালদার,জন সংযোগ ও প্রকাশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শ্রীপতি সিকদার,প্রক্টর প্রফেসর ডা. মো. খালেদ হোসেন,ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মো. তারিকুল ইসলাম,শরীর চর্চা শিক্ষা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শাহ মইনুর রহমান ,সহকারী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতারা ।

 ব্য্যায়ামগারের যন্ত্রপাতি পর্যবেক্ষণকালীন ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম  বলেন, শরীর-মন সুস্থ রাখার জন্য নিয়মিত শরীর চর্চার প্রয়োজন । শরীর মন সুস্থ থাকলে  অন্যকাজ করতে প্রশান্তি পাওয়া যায়। লেখা পড়ায় মনযোগ বসানো যায় । আর বাহিরে অহেতুক সময় নষ্ট এবং নেশা জাতীয় জিনিস থেকে যাতে ছাত্ররা দুরে থাকে সেজন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি  নিয়ে এসে ব্যায়ামগারটিকে ঢেলে সাজানো হয়েছে । আশা করি ছাত্ররা এখন থেকে নিয়মিত শরীর চর্চা করতে পারবে । সামনে ব্যায়ামগারটিকে যাতে আপ টু ডেট রাখা যায় সেজন্যও কাজ করা হবে ।

শারীরিক শিক্ষা শাখার পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. শাহ মইনুর রহমান বলেন,ছাত্ররা বেশ কয়েকবার শরীর চর্চার জন্য যন্ত্রপাতির দাবী জানিয়ে আসছিল । আমরা ভাইস চ্যান্সেলর মহোদয়কে বিষয়টি জানালে তিনি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় নেন । পরে বাজেট গৃহীত হলে ছাত্রদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আমরা” রকেট ফিটনেস পাম্প ১টি ,অরবিট্রাক এক্সারসাইজ বাইক ১টি,এক্সারসাইজ ম্যাগনেটিক বাইক ১টি ,ওয়িং বেঞ্চ ১টি,সিট-আপ-বেঞ্চ ২টি,ম্যানুয়াল ট্রেডমিল ৩টি,সিক্স প্যাক কেয়ার এক্স বাইক ১ টি ,হোম জিম ১টি,ফুটবল নেট ১ টি,ভলিবল ৫টি,বারবেল ৩টি,টেবিল টেনিস বোর্ড ১টি,এবি কিং প্রো ৪টি,ব্যাডমিন্টন র‍্যাকেট ও টেবিল টেনিস ব্যাট ২০ টি করে নিয়ে আসতে পারছি । এবার আমরা দীর্ঘ সময় ধরে  বেহাল অবস্থায় পড়ে থাকা ব্যায়ামগারটিকে নতুন করে ঢেলে সাজাবো । আশা করি  নষ্ট যন্ত্রপাতি গুলো অপসারিত করে নতু যন্ত্রপাতি প্রতিস্থাপিত করে  আগামী সপ্তাহের মধ্যে সকলের  জন্য উম্মুক্ত করে দেয়া যাবে । একজন প্রশিক্ষককেও আমরা রাখার ব্যবস্থা করব ইনশাআল্লাহ ।

ব্যায়ামাগার পরিদর্শন শেষে বিকাল ৫টায় ভাইস চ্যান্সেলর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হলের দেখতে যান এবং  বিদ্যমান সমস্যা গুলোকে চিহিত করে ,সেগুলো দ্রুত সমাধানের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন । তিনি আরও বলেন, আমি বসে থাকার জন্য এখানে আসিনি। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে  সমস্যার সমাধান হয়েছে কিনা তা দেখতে আবার আমি আসব ।

আরও পড়ুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৭-২০১৮. কৃষিসংবাদ.কম
(গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত)